• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • বুধবার | ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | শরৎকাল | বিকাল ৫:০৯
  • আর্কাইভ

লক্ষ্মীপুরের মজুচৌধুরীর হাট সড়কে ফিলিং স্টেশন নেই, বিপাকে পরিবহন শ্রমিকরা

১১:৩২ অপরাহ্ণ, আগ ১২, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুর-ভোলা আঞ্চলিক মহাসড়কের লক্ষ্মীপুর-মজু চৌধুরীর হাট অংশের আশেপাশে কোন পেট্রোল পাম্প বা ফিলিং স্টেশন না থাকায় পরিবহন শ্রমিকরা অহরহ দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।

জানা যায়, লক্ষ্মীপুর-ভোলা নৌরুটে ঢাকা-চট্টগ্রাম-বরিশালসহ দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ২১টি জেলার সহজ যোগাযোগ মাধ্যম এই সড়ক। এই রুটে বালু বিক্রির জমজমাট ব্যবসাও রয়েছে। দৈনন্দিন হাজার হাজার যানবাহন এই রুটে চলাচল করে। সম্প্রতি লক্ষ্মীপুর-ভোলা সড়কটি জাতীয় মহাসড়ক হিসেবে উন্নীত করে সম্প্রসারিত করার জন্য বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। সে আলোকে লক্ষ্মীপুর অংশের ১০ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কের আশেপাশে কোনও পেট্টোল পাম্প বা ফিলিং স্টেশন নেই। যার কারণে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলা থেকে ফেরী পার হয়ে আসা যানবাহনগুলির জ্বালানি শেষ হয়ে গেলেও তারা রিফুয়েলিং করতে পারেনা।

রাস্তায় যানবাহন দাঁড় করিয়ে কন্টেইনারে বহুদূর থেকে জ্বালানি এনে পুনরায় গাড়ি চালিয়ে যেতে হয়। অথচ ভোলা-বরিশাল সড়কের লক্ষ্মীপুর-মজুচৌধুরীর হাট সড়কের যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর এর পার্শ্বে লক্ষ্মীপুর এলপিজি অটো স্টেশন নামে একটি এলপিজি পাম্প রয়েছে।

ওই এলপিজি পাম্পে পেট্রোল, অকটেন ও ডিজেল বিপননের অনুমোদন চেয়ে কয়েক বছর আগে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের নিকট আবেদন করা হয়। তৎ প্রেক্ষিতে বিপিসির অধীন যমুনা অয়েল কোম্পানীর ২১/০৬/২০১৮ইং তারিখে অনুষ্ঠিত ৪৫৬তম বোর্ড সভায় অনুমোদিত হয়। কিন্তু এরি মধ্যে কয়েক বছর পার হয়ে গেলেও লক্ষ্মীপুর এলপিজি অটো স্টেশনকে পেট্রোল, অকটেন ও ডিজেল বিপননের চুড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়নি। যার কারণে এ রুটে চলাচলরত হাজার হাজার যানবাহন চালককে দৈনন্দিন অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

এছাড়াও ইরি বোরো মওসূমে সেচ কাজে ব্যবহৃত ট্র্যাক্টর, কৃষি সেচ যন্ত্রপাতি, ইটভাটা ও মেঘনা নদীতে চলমান ইঞ্জিনচালিত নৌকা, লঞ্চ,স্টীমার, জ্বালানী তেলের অভাবে স্বাভাবিক চলাচলে বিঘœ ঘটছে বলে জানা গেছে।

স্থানীয় অভিজ্ঞ মহল লক্ষ্মীপুর এলপিজি স্টেশনকে পেট্রোল, অকটেন ও ডিজেল বিপননের অনুমোদন দিয়ে পরিবহণ শ্রমিকদের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য বিপিসি কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com