• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • শনিবার | ১২ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | গ্রীষ্মকাল | সন্ধ্যা ৬:২৫
  • আর্কাইভ

লক্ষ্মীপুরে চুরির অপবাদে কিশোরের গলায় জুতার মালা, খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন

৫:১২ অপরাহ্ণ, জানু ২০, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরে চুরির অপবাদ দিয়ে নিরব হোসেন নামে (১৬) এক কিশোরের গলায় জুতা ও ঝাডুর তৈরী মালা পরিয়ে নির্যাতন করা হয়েছে। বিচারের নামে ওই কিশোরকে বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে মারধর করারও একটি ভিডিও ফেজবুকে ভাইরাল হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের ২ নং ওয়ার্ডের জালালিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন এলাকায়।

এ ঘটনার পর নির্যাতিত কিশোর অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা হলে গতকাল সোমবার দুপুরে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত ইসমাইল হোসেন নামের একজনকে আটক করে।

ভিকটিম নিবর একটি চামড়ার দোকানের কর্মচারী। তার কাজের টাকা না দিয়ে তাকে নির্যাতন করে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীসহ পরিবার। তবে, দোকান মালিক ও নির্যাতনকারী রাশেদ বলছে- চুরি করে তার মূলধন আত্মসাৎ করায় নিজেসহ এলাকাবাসী তাকে শাস্তি হিসেবে ঝাড়ু ও জুতার মালা পড়িয়ে দেয়।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, এ ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত একজনকে আটক করা হয়েছে। নির্যাতনে জড়িত সকলকে আটক করে তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জানা যায়, ৬ মাস ধরে স্থানীয় রাশেদ নামে এক ব্যক্তির চামড়ার দোকানে কাজ করতেন মৃত কিরণ হোসেনের ছেলে নিরব হোসেন। এরই মধ্যে তার মাকেও হারান সে। দোকানে মাসিক শ্রমের টাকা পায়নি না বলে অভিযোগ তার।

খোঁজাখুজির পরও দোকান মালিক রাশেদের কাছ থেকে মিলেনা পারিশ্রমিক। তাই বাধ্য হয়ে মালিকের অগোচরে নিজের পাওনা টাকাই নেন বলে দাবী করেন ওই কিশোর। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে ওই দোকান মালিক। শালিসি বৈঠকে স্থানীয় কাউন্সিলর ও মাতাব্বররা তার ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

তবে কাউন্সিলর শিপন ও সালিশদার ইসমাইল ঝাড়ু ও জুতার মালা পড়িয়ে দেয়ার ঘটনা সম্পর্কে অবহিত নন বলে দায় এড়াতে চান। এদিকে এ ঘটনার বিচার দাবী করেন ভিকটিমের নানি আলেয়া বেগমসহ সচেতন মহল।

এ ঘটনায় সোমবার ভুক্তভোগীর নানি বাদী হয়ে সদর থানায় অভিযোগ করেন।

এদিকে ঝাড়ু ও জুতার মালা গলায় পড়িয়ে কিশোরকে এলাকায় ঘুরানোর ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এখন ভাইরাল। সামাজিক মর্যাদা ক্ষুন্নসহ এ ঘটনায় মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিতে দেখা যায়, গেলো শনিবার বিকালে নিজ কর্মরত দোকান থেকে টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে মারধর করা হয় ১৬ বছর বয়সী কিশোর নিরব হোসেনকে। শুধু তাই নয় তার গলায় ঝাড়ু ও জুতার মালা পড়িয়ে নির্যাতন করা হয়। সেই নির্যাতনের ছবি ও ভিডিও তুলে ছেড়ে দেয়া হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। যা এখন ভাইরাল।

এখানেই শেষ নয় নির্যাতনের পর তাকে থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়। পরে পুলিশের কাছ থেকে তাকে ছাড়িয়ে এনে দোকান (চামড়ার দোকান) মালিক শালিসি বৈঠকের আয়োজন করেন। এতে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ মাতব্বররা ওই কিশোরকে দোষী সাব্যস্ত করে তার (কিশোরের) জরিমানা করেন ৩০ হাজার টাকা।

কিন্তু এতিম ওই কিশোরের দায়িত্ব নিতে রাজি হননি নানা ও নানি। এতেই হট্টগোল শুরু হয়ে আবারও মারধর করা হয় তাকে।

রবিবার রাত ৯টায় স্থানীয়দের সহযোগিতায় লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় ভুক্তভোগী কিশোরকে। সোমবার সকালে ভুক্তভোগীর নানি আলেয়া বেগম থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com