• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • রবিবার | ২৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | গ্রীষ্মকাল | বিকাল ৫:০১
  • আর্কাইভ

লক্ষ্মীপুরের ভবানীগঞ্জে কাজী মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে দোকান ঘর ও জমি দখলের অভিযোগ

১:০১ পূর্বাহ্ণ, এপ্রি ১২, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জের চৌরাস্তা বাজারে মৃত গোলাম কিবরিয়া নামে এক ব্যক্তির ক্রয়কৃত জমির উপর থাকা ১০ টি দোকানঘর দখল করার অভিযোগ উঠেছে  কাজী মোহাম্মদ আলী নামে এক ব্যক্তি ও তাদের পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে।

এছাড়া দোকান সংলগ্ন জমিতে ইতোমধ্যে ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন মোহাম্মদ আলী। তাই প্রতিকার পেতে সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন মৃত গোলাম কিবরিয়ার মেয়ে কহিনুর বেগম।

গত ৮ এপ্রিল সদর থানায় দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগে কাজী মোহাম্মদ আলীকে প্রধান বিবাদী করে আরও ৮ জনের বিরুদ্ধে জমি দখলে রাখার অভিযোগ আনা হয়।

তবে অভিযুক্ত মোহাম্মদ আলী বলছেন, জমি পাওয়ার নাম করে গোলাম কিবরিয়ার ওয়ারিশরা আমাদের হয়রানি করছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গোলাম কিবরিয়া ২০০৬ সালের ২৭ ডিসেম্বর ৯৬৬০/০৬ কবলামূলে পৌনে ১৬ শতাংশ জমির মালিক।

যা চরমনসা মৌজার দিয়ারা ১৮০/১৮১ খতিয়ানে ১২২৯, ১২৩৭, ১২৪১, ১২৪৭, ১২২৭, ১২৪০ ও ১২২৮ দাগে রিভিশন জরিপে ২১৩ নং চরমনসা মৌজার ৪০১৩ নং খতিয়ানে ১২৪৫ দাগ, ৪০৯৪ খতিয়ানে ১২৪৮ দাগ, ৪২৭৮ খতিয়ানে ১২৪৬ ও ১২৪৮ দাগে মোট ১৫.৭৫ শতাংশ জমির মালিক। যা মাঠ জরিপে ৪২৭৮, ৪০১৩ ও ৪০১৪ নং খতিয়ানে গোলাম কিবরিয়ার ওয়ারিশদের নামে রেকর্ড হয়।

উক্ত জমিতে ১০ দোকানঘর রয়েছে। এছাড়া পুকুরের অংশ এবং পুকুরের পূর্ব পাশেও উল্লেখিত দাগে তাদের মালিকানাধীন জমি রয়েছে।

ভূক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ, তাদের মালিকানাধীন সম্পত্তি দীর্ঘদিন থেকে মোহাম্মদ আলীগং অবৈধ প্রভাব বিস্তার করে জবর দখলে রেখেছেন। এছাড়া নতুন করে স্থাপনা নির্মাণ শুরু করেছেন তারা। চৌরাস্তা মাছ বাজার সংলগ্ন এবং পাশেই প্রায় দুই কোটি টাকা মূল্যের ১০ টি দোকানঘর দখলে রেখে মোহাম্মদ আলী ভাড়া তুলছেন।

তাদের দাবি, জমির বিরোধ নিয়ে আদালতে মামলা চললেও মোহাম্মদ আলী সেগুলো জোরপূর্বক দখলে রেখেছেন এবং নতুন করে স্থাপনা তৈরী করছেন। তাই আমরা আইনের আশ্রয় নিয়েছি।

তরা জানায়, মামলা নিষ্পত্তি হওয়ার আগে কোন পক্ষ ভোগদখল করতে পারেনা। এটি বেআইনী।  কাজী মোহাম্মদ আলী আইন কানুনের কোন তোয়াক্কা করেনা।

এ ব্যাপারে কাজী মোহাম্মদ আলী জমিগুলো তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি দাবি করে বলেন, জমি নিয়ে আদালতে মামলা আছে। আমি সকল কাগজপত্র আদালতে উপস্থাপন করেছি। কিন্তু তারা মালিকানার স্বপক্ষে কোন কাগজপত্র দাখিল করতে পারেনি। মালমা চলাকালীন জমি নিয়ে অন্য কোথাও অভিযোগ দেওয়া মানে আমাদের হয়রানি করা।

বলেন, আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল আদালত যদি আমাদের বিরুদ্ধে রায় দেয়, তাহলে জমি তাদেরকে ছেড়ে দেব।

জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি সদস্য মুজতবা তুহিন বলেন, জমি নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে আদালতে মামলা চলতেছে। তবে মোহাম্মদ আলী জমিগুলো জবর দখল করে রেখেছেন।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com