• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার | ১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | হেমন্তকাল | রাত ২:৪৭
  • আর্কাইভ

নারী কাউন্সিলর রাহিমার বিরুদ্ধে নারীকে নির্যাতনের অভিযোগ 

১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ, অক্টো ১৩, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরে এক নারী কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে জোছনা বেগম (৫০) নামে এক নারীকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে অভিযুক্ত কাউন্সিলর রাহিমা বেগমের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভূক্তভোগী নারী ও তার পরিবারের সদস্যরা।

এরআগে ঘটনার বিচার চেয়ে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন জোছনা বেগম।

বাদির আইনজীবী রহিম গাজি বলেন, বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

তার অভিযোগ, একটি গভীর নলকূপ বসানোকে কেন্দ্র করে কাউন্সিলর রাহিমা তার কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা দাবি করে। টাকা না পেয়ে বিচার সালিসের নামে তাকে বেধড়ক মারধর করে কাউন্সিলর রাহিমা। এতে হাতের বাহুতে এবং পিঠে লাঠি দিয়ে আঘাত করে এবং গলা চেপে ধরে কাউন্সিলর।

অভিযুক্ত রাহিমা বেগম লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ১৩, ১৪ ও ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর। নির্যাতনের শিকার জোছনা পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের মো. জামাল হোসেনের স্ত্রী।

জোছনা বেগম বলেন, গত ১০ অক্টোবর সন্ধ্যায় কাউন্সিলর রাহিমা বেগম আমাকে তার কার্যালয়ে ডেকে নন। এ সময় সে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে আমাকে বেধড়ক মারধর করে। আমার স্বামী আমাকে রক্ষা করতে গেলে তাকেও লাঠিপেটা করে। এক পর্যায়ে আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি। স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়।

এ ঘটনার পর কাউন্সিলর ও তার লোকজন আমাকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি দিচ্ছে।

তিনি বলেন, আমি ৭০ হাজার টাকা খরচ করে ব্যক্তিগতভাবে বাড়িতে একটি গভীর নলকূপ বসাই। সে বাবদ কাউন্সিলর রাহিমা ২০ হাজার টাকা দাবি করেছে। ওই টাকা না দেওয়ার জের ধরে আমাকে নির্যাতন করেছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী লিপি আক্তার ও রুনা আক্তার বলেন, কাউন্সিলর রাহিমা অন্যায়ভাবে জোছনা বেগমকে নির্যাতন করেছে। ঘটনাটি আমাদের সমানেই ঘটেছে। আমরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাই।

জোছনার মেয়ে রিনা আক্তার ও নিলুফা ইয়াছমিন বলেন, আমাদের মাকে নির্যাতন করা হয়েছে। একজন কাউন্সিলর এভাবে কারো গায়ে হাত তুলতে পারে না। আমরা তার বিচার দাবি করছি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত নারী কাউন্সিলর রাহিমা বেগম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, একটি পারিবারিক অভিযোগের ভিত্তিতে জোছনা বেগমকে আমার অফিসে ডেকে আনা হয়েছে। তাকে কোন মারধর করা হয়নি। আর নলকূপের বিষয়টিও আমি জানি না। এগুলো মিথ্যা কথা। এলাকায় আমার জনপ্রিয়তা আছে, ইউসুফ নামে একজন আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করতেছে। এ ঘটনা তারই একটি অংশ।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com