• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • বুধবার | ১৬ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | বর্ষাকাল | বিকাল ৫:২২
  • আর্কাইভ

গাছকাটা নিয়ে বিরোধ : লক্ষ্মীপুরের গন্ধর্ব্যপুরে যুবককে কুপিয়ে জখম

৪:১০ অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা মান্দারী ইউনিয়নের গন্ধর্ব্যপুরে মো. আজাদ হোসেন (২৭) এক যুবককে কুপিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। গাছ কাটা নিয়ে বিরোধের জের ধরে ওই যুবকের উপর হামলা করা হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হলে মো. নুর আলম (৩৫) ও মো. মোতাহার হোসেন (৪৫) নামে দুইজনকে আটক করে পুলিশ। বর্তমানে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গত রবিবার (২৩ মে) সন্ধ্যার দিকে গন্ধর্ব্যপুর চৌকিদার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। আহত আজাদ ওই এলাকার মৃত মো. আব্দুল সহিদের পুত্র। জেলা সদর হাসপাতালে তাকে চিকিৎস্যা প্রদান করা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গর্ন্ধব্যপুর চৌকিদার বাড়ির মৃত মো. আব্দুল সহিদের স্ত্রী দেলোয়ারা বেগম (৫০) তাদের জমিতে থাকা কয়েকটি গাছ নাজিম উদ্দিন নামে এক বক্তির কাছে বিক্রি করেন। ঘটনার দিন দুপুরে নাজিম ওই গাছ কাটলে গেলে একই বাড়ির মৃত আবুল কালামের পুত্র মোতাহার হোসেনের নির্দেশে বাশারের পুত্র নুর আলম বাধা প্রদান করে। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়।

এর জের ধরে ওইদিন সন্ধ্যায় মোতাহারের নির্দেশে নুর আলম, বাহার, সাইফুল, কামরুল, নাঈম, হালিমা আক্তার সহ অজ্ঞাত লোকজন দেশীয় অস্ত্রস্বস্ত্র নিয়ে দেলোয়ারার বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় তার পুত্র আজাদ ও সোহাগ এগিয়ে আসলে তাদের উপর আক্রমণ করে হামলাকারীরা। এ

ক পর্যায়ে অভিযুক্ত নুর আলম ধারালো অস্ত্র দিয়ে আজাদ হোসেনের মাথায় আঘাত করে। এতে সে গুরুতর জখম হয়। বাড়ির লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

এ ঘটনায় পরদিন দেলোয়ারা বেগম বাদি হয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানায় ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত ৭ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৮-১০ জনের নামে মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ মামলায় প্রধান আসামী মো. নুর আলম (৩৫) ও ৭ নং আসামী মো. মোতাহার হোসেনকে গ্রেফতার করে।

দেলোয়ারা বেগম বলেন, ‘যে বাগান থেকে গাছ কাটার সময় নুর আলম বাধা প্রদান করেছে, ওই বাগানের জমি আমাদের মালিকানাধীন। দীর্ঘদিন থেকে তা আমরা ভোগদখল করে আসছি। বিবাদীরা পূর্বে কখনো মালিকানা দাবি করেনি। আমাদের দখলীয় জমিতে থাকা একটি কড়ই গাছ বিক্রি করার পর সেটি কাটার সময় মোতাহারের নির্দেশে নুর আলম বাধা দেয়। স্থানীয় ইউপি সদস্য এসে বিষয়টি সমাধানের অশ^াস দিলে গাছ কাটা বন্ধ রাখা হয়। কিন্তু ওইদিন সন্ধ্যার দিকে সন্ত্রাসীরা আমাদের উপর হামলা করে এবং আমার ছেলে আজাদের মাথায় ধারলো অস্ত্রের সাহায্যে আঘাত করে তাকে গুরুতর জখম করে। এ ঘটনায় আমি আইনের আশ্রয় নিয়েছি।’

এদিকে এ ঘটনায় অভিযুক্ত পক্ষের কারো বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com