• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • শনিবার | ১৫ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | গ্রীষ্মকাল | ভোর ৫:১৪
  • আর্কাইভ

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ : লক্ষ্মীপুরে দোকানপাট ও গণপরিবহনে নিষেধাজ্ঞা

৪:৪৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৫, ২০২০

মো. নিজাম উদ্দিন : করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধের লক্ষ্যে বুধবার সকাল থেকে লক্ষ্মীপুরে দোকানপাট বন্ধ রাখা হয়েছে। শুধুমাত্র খোলা রয়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ও ওষুধের দোকানপাট। একই সাথে সড়ক এবং মহাসড়কে গণপরিবহণ বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

তবে, নিষেধাজ্ঞার মধ্যেও মহাসড়ক এবং আভ্যন্তরীণ সড়কে সীমিত আকারে যান বাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। মঙ্গলবার রাতে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে জেলা, উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারে মাইকিং করে মুদি দোকান, কাঁচা মালের দোকান ও ওষুধের দোকান ব্যতীত অন্যসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। এছাড়া সংক্রমণ এড়াতে গণ জমায়েত না হতেও অনুরোধ জানানো হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

এদিকে, নির্দেশনা মেনে বাজারের ব্যবসায়ীরা নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্যসব প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে দেখা গেছে। তবে গণপরিবহণের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা পুরোপুরি মানা হচ্ছে না। সড়কে আত্যন্তরীণ যাত্রীবাহী বাস চলাচল না করলেও সীমিত আকারে সিএনজি অটোরিক্সার পাশাপাশি আন্তজেলা বাস চলাচল করতে দেখা গেছে। দিনভর ফাঁকা দিলো জেলার গুরুত্বপূর্ণ শহর।

অন্যদিকে, মঙ্গলবার রাতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দোকানপাট ও গণপরিবহনে নিষেধাজ্ঞা জারির পর থেকে লক্ষ্মীপুর জেলাকে ‘লকডাউন’ করার গুজব ছড়িয়ে পড়ে জনসাধারণের মাঝে। তবে, জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে ‘লকডাউন’ করার মতো পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি এবং ‘লকডাউন’ ঘোষণা করা হয়নি বলে স্থানীয় সাংবাদিকদের নিশ্চিত করা হয়।

সংক্রমণ এড়াতে জেলা শহরসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে জেলা-উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উদ্যোগে জীবানুনাশক ওষুধ ছিটাতে দেখা গেছে। জনসাধারণের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে মাক্স এবং হ্যান্ড স্যানিটেশন। সচেতনতার লক্ষ্যে লিফলেট বিলি করা হচ্ছে, মাইর্কিং করা হচ্ছে জেলা শহরসহ প্রত্যন্ত গ্রামে। হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে প্রবাস ফেরতদের খুঁজে বের করা হচ্ছে। কেয়ারেন্টাইন আইন অমান্যকারী কয়েক জনের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া, কয়েকজনের বাড়িতে লাল নিশান লাগিয়ে দিয়েছে প্রশাসন।

লক্ষ্মীপুর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলাতে প্রবাস ফেরত ৮০৩ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এ পর্যন্ত জেলাতে করোনা ভাইরাস সন্দেহে ৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকাতে পাঠানো হয়। এদের মধ্যে তিন জনের ফলাফলে নেগেটিভ আসে। বাকী একজনের পরীক্ষার ফলাফল এখানো আসেনি। তাকে সদর হাসপাতালের কোয়ারেন্টাইন বিভাগে রাখা হয়েছে। করোনা ভাইরাসের চিকিৎসা প্রদানের জন্য জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে ১০০ শয্যা প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে জানায় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

মঙ্গলবার রাতে জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল গণমাধ্যমকে জানান, লক্ষ্মীপুরকে লকডাউন করার মতো পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি। তবে প্রবাস ফেরতদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখতে প্রশাসন সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছে।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com