• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার | ১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | হেমন্তকাল | রাত ৩:৩৯
  • আর্কাইভ

আগুনে পুড়ে মুহুর্তেই শেষ ব্যবসায়ীর ১৬ বছরের পুঁজি

১১:২১ পূর্বাহ্ণ, অক্টো ১৫, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলা মতিরহাটের ইলেকট্রনিক ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন তালুকদার। নদীর জেলেদের ব্যবহার্য নানা ইলেকট্রিক ও ইলেকট্রনিকস পণ্যের জন্য সুপরিচিত ছিল তার প্রতিষ্ঠান তালুকদার টেলিকম। সম্প্রতি বৈদ্যুতিক শর্ট শার্কিট থেকে লাগা আগুনে মুহুর্তেই জসিমের প্রতিষ্ঠানটি প্রায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। এতে ১৬ বছরের পূঁজি হারিয়ে এখন চোখে মুখে অন্ধকার দেখছেন তিনি।

জসিম লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার চর কালকিনি ইউনিয়নের চর শামসুদ্দিন গ্রামের বাসিন্দা।

তিনি জানান, রোববার (৯ অক্টোবর) রাতে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিক স্থানীয়রা আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। পরে খবর পেয়ে কমলনগর উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

তবে আগুনে জসিমের দোকানে থাকা সবকিছুই পুড়ে চাঁই হয়ে গেছে। এতে তার প্রায় অর্ধকোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। তিল তিল করে গড়ে তোলা প্রতিষ্ঠান মুহুর্তেই শেষ হয়ে গেল। আগুন লাগার খবরে তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েন।

জসিম বলেন, ২০০৮ সালে প্রায় ১০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে ব্যবসা শুরু করি। ১৬ বছরের ব্যবধানে ব্যবসায় মূলধনের পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় অর্ধকোটি টাকা। সব পূঁজিই দোকানে ছিল।

ঘটনার দিন আমার দোকানে ৮-১০টি ব্র্যান্ডের ২০ লাখ টাকা মূল্যের স্মার্ট ফোন ছিল। সবগুলোই পুড়ে গেছে। পাশাপাশি ফোনের এক্সেসরিজ, নদীর ইলেকট্রনিক পণ্য সামগ্রী, সৌর বিদ্যুৎতের মালামাল ছিল। যা প্রায় ২২ থেকে ২৩ লাখ টাকা মূল্যের।

তার দোকানের পাশে থাকা পাটোয়ারী বস্ত্র বিতান, হাজী বস্ত্র বিতান এবং জাফর মেশিনারিজ আংশিক পুড়ে যায়।

কমলনগর উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের টীম লিডার ও ভারপ্রাপ্ত স্টেশন অফিসার আবু জাফর তালুকদার জানান, অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়েই আমরা রওয়ানা করি। কিন্ত পথে মতিরহাট-তোরাবগঞ্জ সড়কটি খারাপ থাকায় মতিরহাট পৌঁছতে আমাদের কিছুটা বিলম্ব হয়। তার পূর্বেই স্থানীয়রা আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। পরে আমরা গিয়ে প্রায় আধা ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনি।

তিনি জানান, আগুনে চারটি দোকানের প্রায় ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। তবে তালুকদার টেলিকমে দামী মোবাইল ফোন সেটসহ অন্যান্য ইলেকট্রনিক্স পণ্য থাকায় একক ভাবে ওই দোকানে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৪০ লাখ টাকা হবে বলে প্রাথমিক ভাবে অনুমান করা হচ্ছে।

এ ঘটনায় বাজারের অন্যান্য ব্যবসায়ীরা তার প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। জসিমের এ দুর্দিনে প্রশাসনসহ ব্যবসায়ীরা তার প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়া উচিত বলে মনে করছেন বাজারের অন্য ব্যবসায়ীরা।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com