• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • মঙ্গলবার | ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | হেমন্তকাল | রাত ২:২৭
  • আর্কাইভ

ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ গড়তে আধুনিক কৃষির বিকল্প নেই : শাহজাহান কামাল

৭:০১ অপরাহ্ণ, নভে ১৪, ২০১৯

প্রবাহ ডেস্ক : আধুনিক কৃষিতে দেশকে উন্নত করতে পারে শিক্ষিত ছেলে-মেয়েরা, ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ গড়তে আধুনিক কৃষির বিকল্প নেই বলে মন্ত্রব্য করেন সাবেক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী এবং লক্ষ্মীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শাহজাহান কামাল।

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) লক্ষ্মীপুর ন্যাশনাল আইডিয়াল স্কুলের আয়োজনে ব্যতিক্রমধর্মী কৃষি পণ্য মেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দিতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় তিনি আর বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বিশ্বায়নের এ যুগে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তুলতে আধুনিক কৃষির গড়ে তুলতে হবে। তাই ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে কৃষি পণ্যের এই মেলার আয়োজন করায় আয়োজকদের সাধুবাদ জানান সাবেক এই মন্ত্রী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, লক্ষ্মীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন, স্কুলের অধ্যক্ষ প্রফেসর রফিকুল ইসলাম, উপাধ্যক্ষ মো. হাবিবুর রহমান সবুজ প্রমুখ।

উল্লেখ.“কৃষি পণ্যের সাথে ছাত্র-ছাত্রীদের পরিচয় করিয়ে দেওয়াই আমাদের লক্ষ্য” এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে ধারণ করে ৩শ’টি কৃষি পণ্য দিয়ে ব্যতিক্রম ধর্মী কৃষি পণ্য মেলার আয়োজন করে লক্ষ্মীপুর ন্যাশনাল আইডিয়াল স্কুল। দিনব্যাপী শহরের বাগবাড়ি এলাকায় স্কুলের নিজস্ব ক্যাম্পাসে প্রায় অর্ধশতাধিক স্টলে ছাত্র-ছাত্রীরা কৃষি উপকরণ নিয়ে কৃষকের সাজে ৩শ’টি পণ্য দিয়ে নিজেদের স্টল সাজিয়ে বসেন।

এ সময় ব্যতিক্রম ধর্মী এই আয়োজন দেখতে ভিড় জমিয়ে ছিলেন ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা, অভিভাবকসহ স্থানীয় হাজারো মানুষ। কেউ ঘুরে-ঘুরে দেখছিলেন, আবার কেউ ছাত্র-ছাত্রীদের স্টল থেকে তাজা শাক-সবজি ক্রয় করে নিয়েছেন।

স্কুলের উপাধ্যক্ষ হাবিবুর রহমান সবুজ জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের কৃষক ও কৃষি পণ্যের সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্যই আমাদের এই আয়োজন। এই মেলার মাধ্যমে প্রায় অর্ধশতাধিক স্টলে ৩শ’টি কৃষি পণ্যের প্রদর্শনী ও বিক্রয়ের আয়োজন করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে লক্ষ্মীপুর ন্যাশনাল আইডিয়াল স্কুল এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, কৃষি ও কৃষক আমাদের অতি পরিচিত একটি নাম। কিন্তু বর্তমান সময়ে আমাদের দেশের শহরের ছাত্র-ছাত্রীরা শুধু বইয়ের মাধ্যমে এই পরিচিতিটি পেয়ে থাকে।

তারা বাস্তাবে এই কৃষির অভিজ্ঞতা পায়না আবার পেলেও এই বিষয়ে তাদের আগ্রহ কম। কৃষি আমাদের প্রাণ, বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু কৃষকদেরকে কৃষি কাজে উৎপাদনের মাধ্যমে দেশকে স্বনির্ভর করার যে ঘোষনা দিয়েছেন, তখন তার ডাকে সাড়া দিয়ে এদেশের কৃষক তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে দেশকে কৃষিতে স্বয়ংসম্পূর্ণ করেছেন।

তাদের সেই কাজ এখনো অব্যাহত রয়েছে। লেখা-পড়ার করে শুধুই যে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার হতে হবে তা নয়। আমাদের ছেলে মেয়েদেরকেও লেখা-পড়া শিখে হতে হবে এবং একজন আধুনিক কৃষক হতে হবে।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com