• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার | ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | শীতকাল | দুপুর ২:৩৮
  • আর্কাইভ

লাইন নির্মাণে সমন্বয়হীন পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ও বিপিডিবি

১২:২৩ পূর্বাহ্ণ, জানু ০৯, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরে নির্মাণাধীন একটি পাওয়ার গ্রিড থেকে ৩৩ কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন নির্মাণকে কেন্দ্র করে মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে লক্ষ্মীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ও লক্ষ্মীপুর বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি)।
এরই মধ্যে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ নিতে ৩৩ কেভি বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণের জন্য খুঁটি স্থাপন করেছে। তাদেরকে বাধা দিয়ে সেখানে বিপিডিবির পক্ষ থেকেও খুঁটি স্থাপন করা হচ্ছে।
এ ঘটনায় দুই প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বরত ঠিকাদারদের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। তবে স্থানীয়রা বিষয়টিকে দুই দফতরের কর্মকর্তাদের মধ্যে সমন্বয়হীনতাকে দায়ি করছেন। যদি বিষয়টি সমাধানে বিপিডিবির পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক এবং পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিকে লিখিত চিঠি দেওয়া হয়েছে। দুই দফতরের শীর্ষ কর্মকর্তারা আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের কথা বললেও শনিবার বিকেল পর্যন্ত কোন দফতর থেকে আলোচনায় বসার উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। দুপুরের দিকে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লোকজন গিয়ে বিপিডিবির লোকজনকে খুঁটি স্থাপনে বাধা দিলেও খুঁটি স্থাপন অব্যাহত রাখা হয়েছে।
সূত্র জানায়, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার জকসিন বাজার সংলগ্ন যাদৈয়া গ্রামে ১৩২/৩৩ জিআইএস গ্রিড উপকেন্দ্র নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ ৫ একর জমির ওপর উপকেন্দ্রটি নির্মাণের কাজ শুরু করে। বাংলাদেশ সরকার, পিজিসিবি এবং উন্নয়ন সংস্থা বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে নির্মাণাধীন উপকেন্দ্রের মাটি ভরাটের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। আগামী দুই বছরের মধ্যে উপকেন্দ্রের নির্মাণকাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে।
গ্রিড উপকেন্দ্রটি থেকে লক্ষ্মীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি এবং লক্ষ্মীপুর বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড তাদের নিজস্ব সবররাহ উপকেন্দ্রতে বিদ্যুৎ নিয়ে তারা গ্রাহক পর্যায়ে বিতরণ করবে। সেজন্য দু দফতর পৃথক পৃথক ৩৩ কেভি (কিলো ভোল্ট) লাইন নির্মাণের উদ্যোগ নেয়।
দুই দফতরের বিতরণ উপকেন্দ্র কেন্দ্র থেকে গ্রিড উপকেন্দ্রটি খুব কাছাকাছি হওয়ায় সঞ্চালন লাইনে বিদ্যুৎ অপচয় রোধ এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগেও বিদ্যুৎ সরবরাহ সহজ হবে। ফলে দুই দফতরই লাইন নির্মাণে আগ্রহী হয়ে উঠেছে।
এরই মধ্যে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি গ্রিড উপকেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ নিতে গ্রিড সংলগ্ন জকসিন-যুগিরহাট সড়কের দক্ষিণ পাশ দিয়ে লাইন নির্মাণের লক্ষে খুঁটি স্থাপনের কাজ শুরু করে। এছাড়া সড়কের পূর্ব পাশে পূর্বেই ৩৩ কেভি আরেকটি লাইন নির্মাণ করে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি।
এতে সড়কের দু’পাশ তাদের দখলে থাকায় বিপাকে পড়েছে লক্ষ্মীপুর বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি)। তাদের ৩৩ কেভি লাইন নির্মাণের কোন পথ না থাকায় দফতরটি দায়িত্বশীলরা পল্লী বিদ্যুতের লাইন নির্মাণে বাধা প্রদান করে। এতে দুই দফতরের লোকজনের মধ্যে মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। যদিও বিষয়টি সমাধানে বিপিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী মিঠু কুমার বিশ্বাস জেলা প্রশাসক এবং পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি জিএম বরাবরে লিখিত আবেদন করেন।
স্থানীয়রা জানান, লাইন নির্মাণকে কেন্দ্র করে দুই দফতর এখন মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। কেউ কারো সাথে আলোচনা না করেই ইচ্ছেমতো লাইন নির্মাণ করছে। সমন্বয়হীনতার কারণে এ সংকট দেখা দিয়েছে। আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধানের উদ্যোগ নেওয়ার দাবি জানান তারা।
বিপিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী মিঠু কুমার বিশ্বাস বলেন, রাস্তার দু’পাশেই পল্লী বিদ্যুতের লাইন থাকায় আমরা ৩৩ কেভি লাইন নির্মাণ করতে পারছি। তাই রাস্তার একপাশ ব্যবহার করে অন্যপাশ আমাদের ছেড়ে দিতে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিকে লিখিতভাবে জানাই। বিষয়টি তারা কর্ণপাত না করায় জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করি। কিন্তু এরই মধ্যে পল্লী বিদ্যুতের ঠিকাদাররা রাতের আঁধারে খুঁটি পুতে রাস্তা দখল করে নেয়। তাই আমরাও রাস্তার পাশে খুঁটি স্থাপন করার উদ্যোগ নিয়েছি। তবে আলোচনার মাধ্যমে লাইন নির্মাণ করলে দুই দফতর গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ নিতে পারবো।
লক্ষ্মীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মো. জাকির হোসেন বলেন, উপকেন্দ্র সংলগ্ন রাস্তার পূর্ব পাশে আমাদের পুরনো একটি ৩৩ কেভি লাইন রয়েছে। উপকেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ আনার জন্য আমাদের ৬ টি সোর্স লাইন নির্মাণ করা প্রয়োজন। তাই রাস্তার দক্ষিণ পাশে আমরা খুঁটি স্থাপন করেছি। বিপিডির লোকজন আমাদের খুঁটি সাথে তাদের খুঁটিও স্থাপন করতেছে। আমাদের গ্রাহক বেশি, বিপিডিবির গ্রাহক অনেক কম। তারা বিকল্প পথে লাইন নির্মাণ করতে পারে।
এছাড়া আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সমাধান করার কথা জানান তিনি।
Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com