• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • মঙ্গলবার | ২০শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | গ্রীষ্মকাল | সকাল ১০:৪০
  • আর্কাইভ

রায়পুর পৌরসভা নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘন, মেয়রসহ তিন কাউন্সিলর প্রার্থীর অর্থদণ্ড

৬:৩১ অপরাহ্ণ, ফেব্রু ২৫, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে পৌরসভা নির্বাচনে ‘ফ্রি স্টাইলে’ চলছে আচরণবিধি লঙ্ঘন। কোনো নিয়মনীতির তোয়াক্কা করছেন না প্রার্থীরা। প্রার্থীদের গণসংযোগ থেকে মাইকিং সব ক্ষেত্রেই আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সংশ্লিষ্টরা যেন এক রকম নির্বিকার। তাদের এমন ভূমিকায় আচরণবিধি লঙ্ঘনে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। যদিও এসব দেখার জন্য তিনজন ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে রয়েছেন।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারী) রায়পুর বাসটার্মিনাল এলাকায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে মঞ্চ তৈরি করে পথসভা করেছেন জেলা যুবলীগ। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলসহ জেলা ও উপজেলার নেতারা। এতে আশপাশের এলাকায় সৃষ্টি হচ্ছে যানজটের। ফের আচরনবিধি লঙ্ঘন করে আবারও আজ বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) একই স্থানে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মঞ্চ তৈরি করে পথ সভার প্রস্তুত চলছে। এতে দলের চটগ্রাম বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহাম্মদ হোসেনসহ কেন্দ্রীয় ও জেলা-উপজেলার নেতারা উপস্থিত থাকার কথা ছিলো।

কিন্তু আচরণবিধি লঙ্ঘনে দুপুরে উপজেলা প্রশাসন থেকে ওই সভা বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে কেন্দ্রীয় নেতারা লক্ষ্মীপুর শহরে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বাসায় আলোচনা সভা করেছে বলে জানা গেছে।

এর আগে রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারী) বিকেলে রায়পুর মৎস্য প্রজনন ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রশাসনিক ভবনে নৌকার মেয়র প্রার্থী ও ৫৭ জন কাউন্সিলর প্রার্থীদের নিয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে গোপন বৈঠকের আয়োজন করা হয়। বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রকাশ পেলে এর ব্যাখা ছেয়ে প্রজনন কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তার কাছে চিঠি লিখে জেলা রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন।

এদিকে নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে নৌকার প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাটসহ তিন কাউন্সিলর প্রার্থীকে ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করেছেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রিপা মনি দেবি।

এ বিষয়ে রায়পুর পৌরসভার মেয়র প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট বলেন, আমরা অত্যন্ত সুষ্ঠু পরিবেশে গণসংযোগ করছি। জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেছে। নেতাকর্মী ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটিকে বলে দিয়েছি, তারা নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলেন। তবুও আচরণবিধি লঙ্ঘনের কারনে জরিমানা করা হয়েছে।

জানতে চাইলে পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন বলেন, আচরণবিধি প্রতিপালন ভালোভাবেই হচ্ছে। দুই মেয়র ও তিনজন কাউন্সিলর প্রার্থী অভিযোগ করেছেন। আচরণবিধি লঙ্ঘন হচ্ছে, অভিযোগ পাওয়ার পর ব্যবস্থা নিচ্ছি না এমন অভিযোগ সত্য নয়।

তিনি আরো বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। আচরণবিধি কঠোরভাবে প্রতিপালন করতে ম্যাজিস্ট্রেটদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি দেখভালের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে। কেউ যদি তার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন না করলে এর দায়-দায়িত্ব কমিশন নিরূপণ করবে। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে ইসি।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com