• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • বুধবার | ২৭শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | শীতকাল | সকাল ৭:৩৮
  • আর্কাইভ

ভিজিএফ’র চাল আত্মসাতে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান ছৈয়ালকে বাঁচাতে গাদাগাদি করে মানববন্ধন

১:২৪ পূর্বাহ্ণ, মে ১৩, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা মহামারিতে এর সংক্রমণ এড়াতে সরকারের পক্ষ থেকে সামাজিক দূরত্ব বাজায় রাখার নির্দেশ দেওয়া হলে তা অমান্য করে লোক জড়ো করে মানববন্ধনের আয়োজন করেছেন লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চররমনী মোহন ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ ছৈয়াল।

সম্প্রতি তিনি জেলেদের জন্য বরাদ্ধকৃত ভিজিএফ’র চাল আত্মসাতের অভিযোগে অভিযুক্ত। আর এ অভিযোগ থেকে নিজেকে বাঁচাতে করোনা মহামারির মধ্যেও লোক জড়ো করিয়েছেন তিনি।

অভিযোগ রয়েছে, তাঁর অনুসারী এবং এলাকার নিরীহ লোকদের ভয়ভীতি দেখিয়ে সাজানো মানববন্ধনে উপস্থিত করান। যদিও এলাকার লোকজন করোনাভাইরাসের ভয়ে জড়ো হতে চননি। কিন্তু প্রভাব খাটিয়ে তিনি এটি করিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত না করে এমন মানববন্ধনের আয়োজন করার কারণে ওই এলাকায় করোনাভাইরাসের সংক্রণের ঝুঁকিতে পড়েছে। যদিও করোনা সংক্রমণ রোধ কমিটির সভাপতি স্ব-স্ব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান।

একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে এমন আয়োজন করায় এলাকার সচেতন মানুষের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। সমালোচনার ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। নিজের অপকর্ম রুখতে লোকজন জড়ো করার ঘটনায় তার বিচার দাবি করছেন তারা।

এছাড়া চাল আত্মসাতের ঘটনায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সুষ্ঠু তদন্ত করে আইনী ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন তারা।

জানা গেছে, চররমনী মোহন ইউনিয়নে জেলেদের জন্য বরাদ্ধকৃত সরকারি চাল মজুদ ও বিক্রি করার দায়ে শনিবার (৯ মে) বিকালে ইউপি চেয়ারম্যান ইউসুফ ছৈয়ালের ভাগিনা সোহাগ ও তাঁর অনুসারী হারুন মাঝি নামে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে তাদের বাড়ি থেকে ২১ মন চাল উদ্ধার করে জব্দ করা হয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, চেয়ারম্যান ছৈয়ালের মাধ্যমে ওই ইউনিয়নের তিন হাজার জেলেদের মধ্যে চাল বিরতণ করা হয়। জেলেদের মধ্যে বরাদ্ধকৃত চাল পরিমাণে কম দিয়ে তা আত্মসাৎ করেছেন তিনি।

এলাকার কয়েকজনের কাছেও সরকারি এসব চাল বিক্রি করা হয় বলে জানা যায়। প্রতিমন ১৫০০-১৬০০ টাকা হারে কিনে নেয়ার কথা জানান অনেকে।

ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে যখন অসহায় জেলেদের চাল অত্মসাতের অভিযোগ ওঠে তখন তিনি নিজেকে বাঁচাতে মরিয়া হয়ে উঠেন। অভিযোগকে মিথ্যা দাবি করে নিজের সমর্থিত ইউপি সদস্য ও লোকদের দিয়ে ইউনিয়নের অস্থায়ী কার্যালয়ের (নিজ বাড়ি) সামনে মঙ্গলবার দুপুরে মানববন্ধনের আয়োজন করান তিনি।

মানববন্ধনে উপস্থিত লোকজনদের দেখা গেছে, জড়োসড়ো হয়ে একজন অপরজনের সাথে ঘেঁষে দাঁড়াতে। এছাড়া মানববন্ধনে উপস্থিত অধিকাংশ লোক মুখে মাস্ক ব্যবহার বা ভাইরাস প্রতিরোধে কোন সুরক্ষা পোশাক পরেনি। ফলে সরকার করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার যে কার্যক্রম হাতে নিয়েছে তা ভেস্তে গেছে ওই এলাকাতে।

মানববন্ধনে কর্মসূচিতে চেয়ারম্যানে পক্ষ নিয়ে বক্তব্য রাখেন ইউপি সদস্য মো. শাহজাহান, দুলাল হোসেন, আবদুল খালেক, নজরুল ইসলাম, ইয়াকুব আলী, ইমাম হোসেনসহ ইউনিয়নের তার সমর্থিত কয়েকজন লোক। তবে মানববন্ধনে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান উপস্থিত না থাকলেও তিনি আয়োজিত মানববন্ধনের অর্থায়ন করেছেন বলে জানা গেছে।

মানববন্ধনে বক্তারা দাবি করেন, বর্তমান করোনাভাইরাস উপেক্ষা করে চররমনী মোহন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আবু ইউসুফ পরিষদের মেম্বারসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। বিশেষ করে ভিজিএফ, ভিজিডিসহ অন্যান্য সরকারি ত্রাণ সহায়তা সাধারণ মানুষদের মাঝে বিতরণ করে যাচ্ছে। তার এসকল কর্মকান্ড থেকে একটি কুচক্রী মহল চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়ষন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com