• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • বুধবার | ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | শরৎকাল | বিকাল ৪:৩৫
  • আর্কাইভ

‘করোনা নয়, জীবনের সাথে যুদ্ধ করছি’

১:৪১ পূর্বাহ্ণ, আগ ০১, ২০২১

মো. নিজাম উদ্দিনঃ কঠোর লকডাউনের মধ্যে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া থেকে লক্ষ্মীপুর হয়ে চট্রগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন মো. বেলাল হোসেন নামে এক গার্মেন্টসকর্মী। শনিবার সকাল ৯টায় তিনি বাড়ি থেকে বের হয়েছে। এদিন সন্ধ্যার পর প্রায় ১০-১১ ঘন্টায় সড়ক এবং ফেরী পার হয়ে তিনি লক্ষ্মীপুরের ঝুমুর সিনেমা হলের সামনে এসে পৌঁছান। প্রায় ১২ ঘন্টা তিনি কোনরকমে সামান্য খাবার খেয়ে পার করেছেন।


তার সাথে আরও ৪ জন নারী রয়েছেন। তারা সকলে গার্মেন্টস শ্রমিক। সবাই একসাথে পিরোজপুর থেকে রওনা হয়েছেন। বেলালের মতো অবস্থা তাদেরও।

শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে লক্ষ্মীপুরের ঝুমুর সিনেমা হলের সামনে তারা অপেক্ষা করছিলেন চট্টগ্রামগামী বাসের জন্য। এ ফাঁকে কথা হয় এ প্রতিবেদকের সাথে।


গার্মেন্টস কর্মী বেলাল হোসেন বলেন, হঠাৎ ফ্যাক্টরী খোলার ঘোষণা দেওয়ায় বাড়ি থেকে বের হয়ে পড়েছি। সড়কে গাড়ি ছিলো না, তারপরেও কঠোর লকডাউনের মধ্যে অটোরিকশা বা ছোট যানবাহন এবং ফেরী ব্যবহার করে এ প্রায় ১০-১১ ঘন্টা সময় নিয়ে এ পর্যন্ত এসেছি। পথে পথে অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। স্বাভাবিকের ছেয়ে কয়েকগুণ ভাড়া গুণতে হয়েছে আমাদের। সারাদিনে কোনমতে খেয়ে আছি। আমরা আসলে জীবন যুদ্ধে নেমেছি।

করোনা সংক্রমণের ভয়াবহতার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, করোনার সাথে যুদ্ধের ছেয়ে আমরা কঠিন জীবন যুদ্ধে আছি।

ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, প্রথমে ৫ আগষ্ট পর্যন্ত গার্মেন্টস বন্ধ রাখার ঘোষণা দিলো, হঠাৎ করে এখন আবার ১ আগষ্ট থেকে গার্মেন্টস খোলার নির্দেশনা আসায় আমাদের মতো কর্মীরা বিপাকে পড়েছে। রাস্তায় গাড়ি নেই, কিন্তু বাড়ি থেকে চট্টগ্রামে গিয়ে কাজে যোগ দিতেই হবে। কারণ অফিস থেকে ফোন করে বলে দিয়েছে, রবিবার থেকে গার্মেন্টস খোলা।


তবে সন্ধ্যার পর গণপরিবহন চালুর ঘোষণায় কিছুটা স্বস্তি প্রকাশ করলেও অতিরিক্ত ভাড়ায় চট্রগ্রামমুখী একটি যাত্রীবাহী বাসের টিকেট ক্রয় করেছেন তিনি।

সড়কে পদে পদে ভোগান্তি এবং অতিরিক্ত ভাড়ার খরচ হওয়ার ক্ষোভ প্রকাশ করে বেলালের সাথে থাকা নারী গার্মেন্টস শ্রমিকরা জানান, গার্মেন্টসে কাজ করে কয় টাকা আর বেতন পাই। কিন্তু অন্য সময়ের ছেয়ে কয়েকগুণ ভাড়া দিয়ে আমাদের কর্মস্থলে যেতে হচ্ছে। আগে ১২শ’ টাকার মতো খরচ হতো। এখন প্রায় আড়াই হাজার টাকা খরচ হবে।


শনিবার রাত ৯টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত লক্ষ্মীপুরের ঝুমুর এলাকায় দেখা কয়েকশ’ মানুষের ভীড়। ঢাকা এবং চট্টগ্রামে যাওয়ার উদ্দেশ্য এরা সেখানে জড়ো হয়েছেন। এদের বেশিরভাগ গার্মেন্টসকর্মী। যে যেভাবে পারছে যানবাহন ব্যবহার করে নিজ নিজ গন্তব্য যাওয়ার যুদ্ধে নেমে পড়েছেন। দুপুর থেকেই এখানে উপচে পড়া নারী-পুরুষের ভীড় ছিলো। অনেকে সিএনজি ও ব্যটারী চালিত অটোরিকশা, মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার, ট্রাক বা পিকাপে করে রওনা দিয়েছেন।

সন্ধ্যার পর সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্তে এখান থেকে চট্টগ্রামমূখী যাত্রী বাহী বাস চলাচল করতে দেখা গেছে। স্বাস্থ্য বিধি না মেনে অতিরিক্ত ভাড়ায় যাত্রী পরিবহণ করতে দেখা গেছে। বাসের পাশাপাশি মাইক্রোবাস এবং ট্রাক-পিআপের মাধ্যমেও শ্রমিকরা কর্মস্থলে ছুটেছেন।

ভোলার বাসিন্দা গামেন্টসকর্মী নার্গিস জানান, তিনি ট্রাকে করে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্য রওনা হয়েছেন। লক্ষ্মীপুর বাস স্টেশন থেকে ৫শ’ টাকা ভাড়ায় তিনি চট্টগ্রামে যাবেন। তার মতো ৩০-৩৫ জন্য নারী-পুরুষ ছিলো ট্রাকটিতে।

জেলার কমলনগরের চার লরেন্স এলাকার বাসিন্দা আবদুর রহিম জানান, তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গাড়ির চালক। সোমবার থেকে ওই প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। তাই কঠোর লকডাউনেও তাকে ঢাকায় যেতে হবে।

এদিকে, অতিরিক্ত ভাড়ার বিষয়ে যাত্রীদের অভিযোগ ছিলো। কয়েকজন যাত্রী জানান, ঢাকায় জনপ্রতি পিকআপের ভাড়া নিচ্ছে ৭শ’ টাকা এবং মাইক্রোবাস একটা হাজার টাকা। ঝুমুরের সামনে একটি সিন্ডিকেটের কয়েকজন সদস্যকে ওইসব যানবাহনে যাত্রীদের তুলে দিতে দেখা গেছে। বিনিময়ে তারা যাত্রীপ্রতি কয়েকশ’ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। সাধারণ মানুষের দুঃসময়ে বাণিজ্য করে যাচ্ছেন অসাধু ব্যক্তিরা।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com