• ঢাকা,বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার | ১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | হেমন্তকাল | রাত ৩:৫০
  • আর্কাইভ

অটোরিকশা চালককে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেরাই ফেঁসে গেলেন

১০:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টে ১৮, ২০২২

নিজস্ব প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে এক অটোরিকশা চালককে ইয়াবার নাটক সাজিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেরাই ফেঁসে গেলেন। ঘটনার সাথে জড়িত তিন জনের মধ্যে গোয়েন্দা পুলিশ দুইজনকে ইয়াবাসহ আটক করে আদালতের মাধ্যমে করাগারে পাঠায়।

জানা গেছে, মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনায় মামলার জের ধরে বাদিকেই ফাঁসাতে চেয়েছিলেন অভিযুক্ত ধর্ষক। ইয়াবার নাটক সাজিয়ে ডিবি পুলিশের হাতে ধরিয়ে দিতে চেয়েছিলেন মামলার বাদি ও ভূক্তভোগী ধর্ষিতার পিতা সাহাব উদ্দিন নামে এক রিকসা চালককে।

উল্টো চক্রান্তকারীরাই ধরা পড়েছে পুলিশের হাতে।তবে মূল পরিকল্পনাকারী ধর্ষণ মামলার আসামী রমজান আলী এখনো ধরা পড়েনি। আর চক্রান্তের ঘটনা ফাঁস হওয়ায় রিকশাচালক সাহাবুদ্দিনকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার মো. মাহফুজ্জামান আশরাফ। শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাতে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। আর আটককৃদের পাঠানো হয় কারাগারে।

অটোরিক্সা চালক মো. শাহাব উদ্দিন জেলার কমলনগর উপজেলার বাসিন্দা চরলরেঞ্চ ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা।

ইয়াবা নাটকের ঘটনায় ডিবি পুলিশের হাতে আটককৃতরা হলেন, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সমসেরাবাদ এলাকার মৃত আবুল কালামের ছেলে মো. রাসেল ওরফে কসাই রাসেল (৩৪) ও কমলনগর উপজেলার চরলরেঞ্চ ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মো. গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মো. সুমন (৩৫)। রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) তাদেরকে মাদকের মামলায় আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টার দিকে তাদেরকে জেলার কমলনগর উপজেলার চরলরেঞ্চ এলাকা থেকে আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে ৫০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করা হয়েছে।

ঘটনাটি রবিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নিশ্চিত করেন জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অফিসার ইনচার্জ সাহাদাত হোসেন টিটো।

তিনি জানান, অটোরিকসা চালক সাহাব উদ্দিন তার মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে কমলনগর থানায় অভিযুক্ত রমজান আলীর নামে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় ধর্ষক রমজান আলীকে কারাগারে যেতে হয়। কারাগার থেকে বের হয়ে প্রতিশোধ নিতে ইয়াবার নাটক সাজায় সে।

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে মো. রাসেল ওরফে কসাই রাসেল ও মো. সুমন নামের দুইজনকে দিয়ে অটোরিকশা চালক সাহাব উদ্দিনকে ফাঁসাতে তার অটোরিকশায় ৫০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট রেখে লক্ষ্মীপুর ডিবি পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযান চালাতে গিয়ে সন্দেহ হয়। পুলিশ সংবাদাতা রাসেল ও সুমনকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তারা ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানের ঘটনাটি স্বীকার করে।

ডিবির ইনচার্জ আরও বলেন, সাহাব উদ্দিনের অটোরিকশাতে ইয়াবা ট্যাবলেট আছে এবং সে ইয়াবা ব্যবসা করে- আমাদেরকে এমন সংবাদ দেওয়া হয়। আমরা যখন ঘটনাস্থলে যাই, তখন অটোরিকশা চালক সাহাব উদ্দিনকে দেখে এবং সংবাদদাতা রাসেল ও সুমনের কথা শুনে আমাদের সন্দেহ হয়। তখন তাদেরকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর ঘটনাটি স্বীকার করে। পরে আমরা তাদের দুইজনকেই আটক করি।

তিনি বলেন, মূল পরিকল্পনারকারী রমজান পালিয়ে গেছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। গ্রেফতাকৃত রাসেল ওরফে কসাই রাসেল চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে ৮টি মামলা বিচারাধীন আছে। ঘটনার সাথে জড়িত তিনজনের নামে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়েছে। এদের মধ্যে আটককৃত দুইজনকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ



Design & Developed by Md Abdur Rashid, Mobile: 01720541362, Email:arashid882003@gmail.com